Author: ফারহানা রহমান

সুনিপুন জাল

বাঁধভাঙ্গা প্লাবনের মত ভেসে থাকে জ্যোৎস্নার আলো। সেইসাথে হু হু করে বাতাস বয়ে যাচ্ছে কোথাও কোন  অজানায়। গুঁড়িয়ে পড়ছে পৃথিবীর সব নৈঃশব্দ্য। এমনি কোন এক ঐশ্বরিক রাতেই হয়তো গৌতম বুদ্ধ নির্বাণ লাভ করেছিল। কিন্তু সব পূর্ণিমা রাতই যে এতোটা নিস্তরঙ্গ হবে তাও তো নয়। এই ভীষণ আলোকিত রাতেও তাই আমাদের গল্পের নায়িকা বিপাশার মন খুব … [ সম্পূর্ণ পোস্ট পড়ুন ]

নিরুদ্দেশ যাত্রা ও শহীদ কাদরী

সমকালীন বাংলা কবিতার অন্যতম প্রধান কবি, আমাদের প্রিয় কবি শহীদ কাদরী। এদেশের কবিতার ভূমিতল যাদের মননে- বৈদগ্ধ্যে উজ্জ্বল হয়ে উঠেছিল, শহীদ কাদরী তাদের অন্যতম। পঞ্চাশ উত্তর বাংলা কবিতা ধারায় আধুনিক মানসিকতার জীবনবোধ, বিশ্বনাগরিকবোধ ও জীবনের সুখদুঃখ, তির্যকতা, প্রকরণগত উদ্ভাবনা, শ্লেষ, দেশের প্রতি গভীর ভালোবাসার প্রকাশ এবং রাষ্ট্রযন্ত্রের কুটকৌশল এসব কিছুর সংমিশ্রণ এবং এক বিশিষ্ট শিল্পবোধ … [ সম্পূর্ণ পোস্ট পড়ুন ]

বাবার মেয়ে

আমাদের বাবাকে আমরা আব্বা বলে ডাকতাম। আমাদের সমাজে আদর্শবাবা বোলতে সেসব গুণসম্পন্ন বাবাদের বোঝানো হয় তার ছিটেফোঁটাও আব্বার মধ্যে ছিলো না। আব্বা না ছিলো বাস্তববাদী লোক না ছিল সংসারী মানুষ। অত্যন্ত বেহিসেবী আর শিশুদের মতো সরল একজন অতন্ত ট্যালেন্ট মানুষ ছিলো আব্বা। আব্বা সায়েন্স ল্যাবরেটরির প্রিন্সিপ্যাল ইঞ্জিনিয়ার ছিলো কিন্তু অফিসে আব্বাকে সবাই পাগল বিজ্ঞানী বলে ডাকতো। বড় বড় ঝাঁকড়া চুল আব্বার কাঁধ ছাড়িয়ে নীচে নেমে আসতো। আর একটা ভাঙ্গা চশমা আর দুটো প্যান্ট আর দুটো টিশার্ট এগুলোই ছিলো  আব্বার সম্পত্তি। অথচ আমাদের কোন শখ অপূরণ ছিল বলে মনে পড়েনা।