শ্রীশুভ্র

৭ই নভেম্বর ১৯১৭! মানুষের ইতিহাসে সবচেয়ে উজ্জ্বলতম দিন। লেনিনের হাত ধরে বিশ্বে প্রথম আত্মপ্রকাশ করে সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা। বিশ্বের ইতিহাসে যা মহান অক্টোবর বিপ্লব নামেই সমধিক পরিচিত। বিশ্বজুড়ে নানানভাবে পালিত হচ্ছে সেই ঐতিহাসিক বিপ্লবেরই শতবর্ষ। লেনিনের হাত ধরে ঘটা এই বিপ্লবের মধ্যে দিয়েই আবিশ্ব পরিচিতি পায় মার্ক্সবাদ। অমর হয়ে উঠেন কার্ল মার্ক্স। এসবই আজ ইতিহাস। অনেকের কাছেই কার্যত মৃত ইতিহাস। বিগত শতকের আশির দশকের শেষে ও নব্বই দশকের শুরুতেই সোভিয়েত ইউনিয়নের সাথে পূর্ব ইউরোপের দেশগুলিতেও সমাজতন্ত্রের পতন ও আধুনিক যুগের বিশ্বায়নের ঢক্কানিনাদে অনেকেরই বিশ্বাস সমাজতন্ত্র একটি ব্যর্থ প্রয়াস। ফলে আজকের একমেরু বিশ্বব্যবস্থায় মহান অক্টোবর বিপ্লবের আর কোনই প্রাসঙ্গিকতা বিদ্যমান নয়। হ্যাঁ, এইরকমই ভাবেন এযুগের অধিকাংশ মানুষ। কিন্তু যে কোন সমাজমনস্ক মানুষই বিশেষত যাদের চেতনায় বিশ্বব্যাপী শ্রমজীবী মানুষের জীবনযাপনের লড়াইয়ের ইতিহাস সম্বন্ধে সামান্যতমও অভিজ্ঞতা আছে; তাঁরা জানেন অক্টোবর বিপ্লবের বিশ্বব্যাপি অভিঘাতের কথা। শুধুমাত্র শ্রমজীবী কৃষিজীবী মানুষই নয়, সাধারণ নাগরিকদেরও জীবনে আধুনিক রাষ্ট্রতন্ত্র কর্তৃক স্বীকৃত মৌলিক অধিকারগুলির অধিকাংশই বাস্তবে সংরক্ষিত হয়েছে এই অক্টোবর বিপ্লবের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ অভিঘাতের কারণেই। আজকে প্রায় সবরকমের রাষ্ট্রতন্ত্রেই সমাজিক সুরক্ষার বিষয়টির ওপর যে নানাভাবে জোর দেওয়া হয়, তার পশ্চাতেই রয়েছে অক্টোবর বিপ্লবের মাধ্যমে উঠে আসা সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রত্যক্ষ প্রভাব। সেই সোভিয়েত ইউনিয়ন আজ আর নাই। কিন্তু রয়ে গিয়েছে তার যুগান্তকারী অনেক সুফল।

বস্তুত কার্ল মার্ক্সের অর্থনৈতিক দর্শন ও লেনিনের সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রতন্ত্রের বাস্তবিক প্রয়োগের ভিতর দিয়েই মানুষের চেতনায় অর্থনৈতিক শোষণ ও অবিচারের বিরুদ্ধে যুথবদ্ধ লড়াইয়ের প্রত্যয় ও দিগদর্শন গড়ে ওঠে। সেই বৈপ্লবিক চেতনার প্রথম সূত্রপাতই ঘটে মহান অক্টোবর বিপ্লবের হাত ধরেই। যে চেতনা পরে ছড়িয়ে পড়ে পৃথিবীর নানান প্রান্তেই। এইখানেই অক্টোবর বিপ্লবের ঐতিহাসিক গুরুত্ব। আজ একমেরু বিশ্বের ধনতান্ত্রিক ভোগবাদের বিজয় রথের দুর্বার গতির সাফল্য দেখে হয়তো অনেকেরই চোখ ধাঁধিয়ে গিয়েছে। আর চোখ ধাঁধিয়ে গেলে যা হয়, স্পষ্ট দেখা যায় না অনেক কিছুই। যতটুকু দেখা যায়, তার বেশির ভাগটাই আবার বস্তুত দৃশ্য বিভ্রম মাত্র। ঠিক সেইটিই ঘটে চলেছে আজকের বৌদ্ধিক মানসে। তাই অনেকেই অক্টোবর বিপ্লবের শতবার্ষিকীর প্রাসঙ্গিকতা নিয়েই সন্দিহান। আবার অনেকেই আজকের বিশ্বায়নের ঢক্কানিনাদে এতটাই মশগুল যে হাতের কাছে চাহিদা মতো ভোগ্যপণ্যগুলি নিয়মিত পেয়ে গেলেই উর্দ্ধবাহু হয়ে ধনতন্ত্রের জয়গান প্রচার করে চলেছেন। এঁদের কারুর পক্ষেই প্রদীপের তলার আসল অন্ধকারের গভীরতাটুকু তলিয়ে দেখার সামর্থ্য ও অবসর কোনটাই নাই। কিন্তু কথায় বলে অন্ধ হয়ে থাকলেই প্রলয় বন্ধ হয় না। হবেও না।

মানুষের ইতিহাস বস্তুত অসাম্যের বিরুদ্ধে, বঞ্চনার বিরুদ্ধে, শোষণের বিরুদ্ধে নিরন্তর লড়াইয়ের ইতিহাস। মানুষের সমাজ গড়ে উঠেছে শোষক ও শোষিতকে নিয়েই। এই দুই পক্ষের পারস্পরিক লড়াই ও দ্বন্দ্বের ভিতর দিয়েই সমাজ বিবর্তিত হয়ে চলেছে। সমাজ বিবর্তনের সেই নানান ধাপগুলির মধ্যে অক্টোবর বিপ্লব একটি সর্বোচ্চ শৃঙ্গ। অনেকেই বলবেন, সব সমাজই একই ভাবে একই সময়ে বিবর্তিত হয় না। আর অক্টোবর বিপ্লব শুধু মাত্র সোভিয়েত ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ ঘটনা। খুবই সত্য কথা। কিন্তু অক্টোবর বিপ্লবের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্রভাব আবিশ্ব প্রায় সকল দেশে ও সমাজেই কোন না কোনভাবে কিছু না কিছুটা পড়েছেই। এইখানেই অক্টোবর বিপ্লবের মূল সাফল্য। অনেকেই প্রশ্ন তুলতে পারেন, আজকের বিশ্বায়িত বাজার অর্থনীতিতে সেই প্রভাব আর কতটুকুই বা অবশিষ্ট রয়েছে। অবশিষ্ট যতটুকুই থাকুক আর নাই থাকুক, ধনতান্ত্রিক সাম্রাজ্যবাদের সর্বগ্রাসী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর সবচেয়ে বড়ো রেফারেন্স হিসাবেই অক্টোবর বিপ্লবের প্রাসঙ্গিকতা রয়ে যাবে আরও বহু শতক।

একটি কথা মানতেই হবে, সকল মানুষের জন্যে সমান অধিকার ও সম সুযোগ, এই ধারণাটি মানুষের প্রত্যয়ে গেঁথে দিতে পেরেছিল মহান অক্টোবর বিপ্লবেরই সুদূরপ্রসারী অভিঘাত। বিশ্বের যে কোন প্রান্তেই হোক, আজকের মানুষ এই কথাটি বিশ্বাস করে অত্যন্ত দৃঢ়তার সাথেই। সেই অধিকার ও সুযোগ কে কিভাবে বাস্তবায়িত করবে, বা আদৌ করতে সক্ষম হবে কিনা, সেটা অন্য প্রসঙ্গ। কিন্তু এই ধারণাটির নৈতিকতা নিয়ে আজ আর কেউই কোনভাবেই সন্দিহান নয়। বিগত একশ বছরে এইখানেই অক্টোবর বিপ্লবের প্রাণভোমরা সক্রিয় হয়ে থেকেছে। তাই এই বিপ্লবের ঐতিহাসিক গুরুত্ব নিয়ে যাঁরা আজ প্রশ্ন তুলতে চান, বুঝতে হবে জীবনবাস্তবতার সাথে তাদের নাড়ীর যোগ বিলুপ্ত। আবিশ্ব ধনতান্ত্রিক অর্থনীতির জৌলুসে বিমুগ্ধ হয়ে আজকের দিনে যারা অক্টোবর বিপ্লবের প্রাসঙ্গিকতাকেই নস্যাৎ করে দিতে চান, বুঝতে হবে তাদেরও চোখ বন্ধ। বন্ধ বিশ্বায়নের ঠুলিতেই। বিশ্বায়নের এই ঠুলির বিরুদ্ধেই সরব হওয়ার সময় এসেছে আজ। বিশ্বায়নের এই ঠুলিতে অন্ধ হয়ে আবিশ্ব ধনতান্ত্রিক সাম্রাজ্যবাদের ক্রীড়নক হয়ে পড়ার সর্বগ্রাসী প্রভাব সম্বন্ধে সচেতন হয়ে ওঠারও সময় এসেছে আজ। আর সেই সচেতনতার অন্যতম আয়ুধ হয়ে ওঠার ক্ষমতা নিয়েই ইতিহাসের যুগসন্ধিকালের অন্যতম সাক্ষী হয়ে আজও দাঁড়িয়ে আছে শতবার্ষিকীর এই অক্টোবর বিপ্লব।

শ্রীশুভ্র এর ব্লগ   ৪৩১ বার পঠিত